ঢাকা ০৫:৩৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজ ::
চৌদ্দগ্রামে নামাজরত অবস্থায় ইমামকে কুপিয়ে জখম রাখাইনে সংঘাত ও সেন্টমার্টিন পরিস্থিতি | ব্রিঃ জেঃ হাসান মোঃ শামসুদ্দীন (অবঃ) নীলফামারীতে মাদ্রাসার শিক্ষককে কুপিয়ে জখম  চৌদ্দগ্রামে দাফনের ৭ দিন পর বাড়ি ফিরলেন রোকসানা নামের এক তরুণী নৌকা বিকল হয়ে মেঘনায় আটকে ছিল সাত ছাত্র, ৯৯৯ নম্বরে ফোন কলে উদ্ধার শ্রীপুরে ক্যাপিটেশন প্লান্টের চেক বিতরণ কথা বলছে’ গাছ, ভেসে আসছে নারী কণ্ঠের আর্তনাদ বাইশরশি বিশ্ব জাকের মঞ্জিলে জাকের পার্টির ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত চৌদ্দগ্রামে গাঁজা-ইয়াবা উদ্ধার, কথিত সাংবাদিকসহ আটক ১৩ স্বাধীনতার আগে মারা যাওয়া ব্যক্তিকে ২০১৫ সালে ঋণ দিয়েছে কৃষি ব্যাংক

কক্সবাজারে দূর্গা পূজার মন্দিরে/ সরকারি খরচে সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থার দাবিতে মানববন্ধন

বাংলাদেশের বার্তা
  • আপডেট সময় : ০১:১৮:৫৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • / ৯৬১৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলাদেশের বার্তা অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আজিজ উদ্দিন

বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট কেন্দ্রীয় কর্মসূচি অনুযায়ী কক্সবাজারে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।দেশের বিভিন্ন স্থানে পূজামণ্ডপে নিরাপত্তা জোরদারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট। একই সঙ্গে দুর্গাপূজায় তিন দিনের সরকারি ছুটিরতে সিসি ক্যামেরা বসানোর দাবি জানিয়েছে।

সেপ্টেম্বর ১৭ই শনিবার সকাল ১১.৩০ ঘটিকায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট, কক্সবাজার শাখা আয়োজিত মানববন্ধন থেকে এসব দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন,
সারা দেশে একের পর এক প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনা ঘটে চলছে। বিশেষ করে দুর্গোৎসব আসার আগে এ ধরনের ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটে, যা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। বিশেষ করে পূজামণ্ডপে প্রতিমা নির্মাণের সময় দুর্গোৎসবকে বিঘ্নিত করার জন্য একটি চক্র এ ধরনের ঘটনা ঘটায়। এ ধরনের ঘটনা আজ নতুন নয়, এ ধরনের ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটেছে। কিন্তু ন্যায়বিচার ও প্রতিকার বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মেলেনি।

বক্তারা আরও বলেন,
বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের দীর্ঘদিনের যৌক্তিক দাবি শারদীয় দুর্গাপূজায় সরকারিভাবে ৩ দিনের ছুটি ঘোষণা। এখন শরতকাল। কিছুদিনের মধ্যে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে অন্যতম বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। শুধু বাংলাদেশ নয়, পৃথিবীর সব বাংলা ভাষাভাষি হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের কাছে শারদীয় দুর্গাপূজা সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। বাংলাদেশের গ্রামগঞ্জে সর্বত্র পারিবারিক কিংবা সার্বজনীন দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়।

সাধারণত ষষ্ঠীতে দেবীর বোধন তথা পূজা শুরু হয় এবং দশমীতে বিসর্জনের মধ্য দিয়ে পূজা শেষ হয়। দুর্গাপূজায় ষষ্ঠী থেকে দশমী- এই পাঁচ দিনের পূজা অনুষ্ঠানের জন্য বাংলাদেশের হিন্দুরা সরকারি ছুটি পাচ্ছেন শুধুমাত্র ১ দিন, তথা বিজয়া দশমীর দিন। দুর্গাপূজায় মাত্র এই ১ দিনের সরকারি ছুটির কারণে বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায় দীর্ঘদিন ধরে দুর্গাপূজার আনন্দ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

অথচ হিন্দু সম্প্রদায়ের সদস্যরা পরিবার-পরিজনের সঙ্গে মিলিত হওয়ার বাসনায় সারা বছর শারদীয় পূজার এই দিনগুলোর জন্য অপেক্ষায় থাকে।

উক্ত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের কক্সবাজার জেলার শাখার সভাপতি মিঠন দাশ মিন্টু , উক্ত মানববন্ধন সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সজল কান্তি দে।

উক্ত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন,
কক্সবাজার জেলার হিন্দু মহাজোট উপদেষ্টা সমীর পাল, মাস্টার দিলীপ দাস নির্বাহী সভাপতি বিপ্লব মল্লিক শুভ, সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট টুটুল পাল , নিখিল দে ,
কক্সবাজার সদর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সভাপতি এডভোকেট বাপ্পি শর্মা সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক বলরাম দাশ, প্রধান সমন্বয়কারী সুজন দাশ।

সাংগঠনিক সম্পাদক সাংবাদিক সুজন চক্রবর্তী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এড. ছোটন কান্তি শর্মা, হিন্দু মহাজোট পৌর শাখা সভাপতি প্রতিরোধ পাল রনি , মুখপাত্র লিটন কান্তি ধর প্রভু, সাধারণ সম্পাদক সজল মল্লিক , রামু উপজেলা যুব মহাজোট ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তপন শর্মা, ছাত্র মহাজোট সভাপতি রামপ্রসাদ শর্মা ছোটন সাধারণ সম্পাদক জেকসন দাশ, সহ বিভিন্ন উপজেলা হিন্দু মহাজোটের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

http://এইচ/কে

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

কক্সবাজারে দূর্গা পূজার মন্দিরে/ সরকারি খরচে সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থার দাবিতে মানববন্ধন

আপডেট সময় : ০১:১৮:৫৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

আজিজ উদ্দিন

বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট কেন্দ্রীয় কর্মসূচি অনুযায়ী কক্সবাজারে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।দেশের বিভিন্ন স্থানে পূজামণ্ডপে নিরাপত্তা জোরদারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট। একই সঙ্গে দুর্গাপূজায় তিন দিনের সরকারি ছুটিরতে সিসি ক্যামেরা বসানোর দাবি জানিয়েছে।

সেপ্টেম্বর ১৭ই শনিবার সকাল ১১.৩০ ঘটিকায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট, কক্সবাজার শাখা আয়োজিত মানববন্ধন থেকে এসব দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন,
সারা দেশে একের পর এক প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনা ঘটে চলছে। বিশেষ করে দুর্গোৎসব আসার আগে এ ধরনের ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটে, যা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। বিশেষ করে পূজামণ্ডপে প্রতিমা নির্মাণের সময় দুর্গোৎসবকে বিঘ্নিত করার জন্য একটি চক্র এ ধরনের ঘটনা ঘটায়। এ ধরনের ঘটনা আজ নতুন নয়, এ ধরনের ঘটনা প্রতিনিয়ত ঘটেছে। কিন্তু ন্যায়বিচার ও প্রতিকার বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মেলেনি।

বক্তারা আরও বলেন,
বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের দীর্ঘদিনের যৌক্তিক দাবি শারদীয় দুর্গাপূজায় সরকারিভাবে ৩ দিনের ছুটি ঘোষণা। এখন শরতকাল। কিছুদিনের মধ্যে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে অন্যতম বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। শুধু বাংলাদেশ নয়, পৃথিবীর সব বাংলা ভাষাভাষি হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের কাছে শারদীয় দুর্গাপূজা সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। বাংলাদেশের গ্রামগঞ্জে সর্বত্র পারিবারিক কিংবা সার্বজনীন দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়।

সাধারণত ষষ্ঠীতে দেবীর বোধন তথা পূজা শুরু হয় এবং দশমীতে বিসর্জনের মধ্য দিয়ে পূজা শেষ হয়। দুর্গাপূজায় ষষ্ঠী থেকে দশমী- এই পাঁচ দিনের পূজা অনুষ্ঠানের জন্য বাংলাদেশের হিন্দুরা সরকারি ছুটি পাচ্ছেন শুধুমাত্র ১ দিন, তথা বিজয়া দশমীর দিন। দুর্গাপূজায় মাত্র এই ১ দিনের সরকারি ছুটির কারণে বাংলাদেশের হিন্দু সম্প্রদায় দীর্ঘদিন ধরে দুর্গাপূজার আনন্দ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

অথচ হিন্দু সম্প্রদায়ের সদস্যরা পরিবার-পরিজনের সঙ্গে মিলিত হওয়ার বাসনায় সারা বছর শারদীয় পূজার এই দিনগুলোর জন্য অপেক্ষায় থাকে।

উক্ত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের কক্সবাজার জেলার শাখার সভাপতি মিঠন দাশ মিন্টু , উক্ত মানববন্ধন সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সজল কান্তি দে।

উক্ত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন,
কক্সবাজার জেলার হিন্দু মহাজোট উপদেষ্টা সমীর পাল, মাস্টার দিলীপ দাস নির্বাহী সভাপতি বিপ্লব মল্লিক শুভ, সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট টুটুল পাল , নিখিল দে ,
কক্সবাজার সদর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ সভাপতি এডভোকেট বাপ্পি শর্মা সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক বলরাম দাশ, প্রধান সমন্বয়কারী সুজন দাশ।

সাংগঠনিক সম্পাদক সাংবাদিক সুজন চক্রবর্তী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এড. ছোটন কান্তি শর্মা, হিন্দু মহাজোট পৌর শাখা সভাপতি প্রতিরোধ পাল রনি , মুখপাত্র লিটন কান্তি ধর প্রভু, সাধারণ সম্পাদক সজল মল্লিক , রামু উপজেলা যুব মহাজোট ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তপন শর্মা, ছাত্র মহাজোট সভাপতি রামপ্রসাদ শর্মা ছোটন সাধারণ সম্পাদক জেকসন দাশ, সহ বিভিন্ন উপজেলা হিন্দু মহাজোটের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

http://এইচ/কে