ঢাকা ০৯:৪৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৯ নম্বর ও মোংলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হতে পারে যেসব জেলায় শাহজালাল বিমানবন্দরে ৫ কোটি টাকার স্বর্ণ জব্দ চৌদ্দগ্রামে উপজেলা পর্যায় শ্রেষ্ঠ শ্রেণী শিক্ষক সামছুদ্দিন আহমেদ ইরান রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে শোক বই “জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের” পক্ষে শোক প্রকাশ শ্রীপুরে ছাত্রীকে কু-প্রস্তাব দিয়ে শিক্ষকের চিঠি প্রতিবাদ করায় পিতাকে কুপিয়ে জখম হেলিকপ্টার বিদ্ধস্ত হয়ে ইরানের প্রেসিডেন্ট নিহত ‘জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের”শোক কীভাবে বিধ্বস্ত হলো ইরানি প্রেসিডেন্ট রাইসির হেলিকপ্টার? হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত ইরানের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‌’মারা গেছেন’ ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসির মৃত্যু নিয়ে অবশেষে মুখ খুললো ইসরায়েল
সংবাদ শিরোনাম ::
চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৯ নম্বর ও মোংলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হতে পারে যেসব জেলায় শাহজালাল বিমানবন্দরে ৫ কোটি টাকার স্বর্ণ জব্দ চৌদ্দগ্রামে উপজেলা পর্যায় শ্রেষ্ঠ শ্রেণী শিক্ষক সামছুদ্দিন আহমেদ ইরান রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে শোক বই “জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের” পক্ষে শোক প্রকাশ শ্রীপুরে ছাত্রীকে কু-প্রস্তাব দিয়ে শিক্ষকের চিঠি প্রতিবাদ করায় পিতাকে কুপিয়ে জখম হেলিকপ্টার বিদ্ধস্ত হয়ে ইরানের প্রেসিডেন্ট নিহত ‘জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের”শোক কীভাবে বিধ্বস্ত হলো ইরানি প্রেসিডেন্ট রাইসির হেলিকপ্টার? হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত ইরানের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‌’মারা গেছেন’ ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসির মৃত্যু নিয়ে অবশেষে মুখ খুললো ইসরায়েল

প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় মাঠে থাকবে জাতীয় পার্টি,থাকবে চমক

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:০৭:২৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৩৫৯৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলাদেশের বার্তা অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নবিজুল ইসলাম নবীন,নীলফামারী প্রতিনিধি।

রংপুর জেলা স্কুল মাঠে বুধবার (২ আগস্ট) বিভাগীয় আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আয়োজকদের দাবি ওই জনসভা হবে জনসমুদ্র, যেখান থেকে নির্বাচনি প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী। এখন চলছে শেষ মুহূর্তে মাঠ, মঞ্চ সাজানোর কাজ।

রংপুর মহানগরীর ২১টি পয়েন্টে করা হয়েছে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা। এক হাজারের বেশি সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। প্রবেশ পথগুলোতে সন্দেহভাজন যানবাহন ও ব্যক্তিদের তল্লাশি করা চলছে। সর্বোচ্চ সতর্কতার সঙ্গে জনসভায় আসা-যাওয়া নির্বিঘ্ন করতে চায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

এদিকে প্রায় এক যুগ পর পীরগঞ্জের লালদীঘির পুত্রবধূ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসছেন রংপুরে। বধূবরণে আয়োজনের বিন্দুমাত্র কমতি নেই কোথাও। উজ্জ্বীবিত আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। প্রধানমন্ত্রীকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাসের ঢেউ বইছে।

জনসভা আওয়ামী লীগের হলেও মাঠে আগত নেতাকর্মীদের পিপাসা মেটাতে পানির বোতল হাতে থাকবে জাতীয় পার্টির। ইতোমধ্যে ২ লাখ ২৫ হাজার আধা লিটার পানির বোতল সরবরাহ করেছে দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে ফেস্টুন,ব্যানার, তোরণ আর বিলবোর্ড সাটিয়েছেন জাপার এই নেতা।

জনসভা সফল করতে সবধরণের সহযোগিতার কথাও জানিয়ে সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘদিন পর রংপুর আসছেন। আমরা দলমত নির্বিশেষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগতম জানানোর জন্য উদগ্রীব হয়ে আছি। জনসভাকে সফল করার জন্য আমরা আমাদের দলের পক্ষ থেকে যতটুকু সাধ্য দলকে অর্গানাইজড করে আমরা জনসভায় যাব। সেজন্য আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা রংপুর সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে প্রায় আড়াই লাখ বোতল পানির ব্যবস্থা করেছি। যাতে তীব্র রোদে কিছুটা হলেও মানুষ পিপাসা মিটিয়ে শান্তি পায়। এছাড়া সিটি কর্পোরেশনের অর্থায়নে আমরা জনসভায় আইনশৃঙখলা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সিসিটিভি ক্যামেরা বসিয়েছি। যেটা দেখভাল করবে মহানগর পুলিশ।

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় থাকতে পারে চমক 

এদিকে জিলা স্কুল মাঠের জনসভামঞ্চ থেকে ২০১১ সালের মতো আবারও প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় চমক থাকতে পারে আওয়ামী লীগ এবং সরকারের বিভিন্ন সূত্রগুলো থেকে জানা গেছে। তথ্যমতে, তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন, শ্যামাসুন্দরী খাল খনন, রংপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর মেডিকেল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়, অর্থনৈতিক জোন, বন্ধ চিনিকল খুলে দেওয়াসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প বাস্তবায়নের ঘোষণা আসতে পারে জনসভা থেকে।

এছাড়া ১ হাজার ২৪০ কোটি টাকার ২৭টি প্রকল্পের উদ্বোধন এবং নতুন করে আরও পাঁচটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জনসভায় বক্তৃতা দেওয়ার আগে তিনি এসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন।

রংপুর জেলা প্রশাসন সূত্র জানিয়েছে, কাজ শেষে প্রস্তুত হওয়া শেখ রাসেল মিডিয়া সেন্টার, শেখ রাসেল ইনডোর স্টেডিয়াম, শেখ রাসেল সুইমিংপুল, পীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন জলাশয়ের জলাবদ্ধতা নিরসন শীর্ষক প্রকল্প, বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স, পালিচড়া স্টেডিয়াম, নলেয়া নদী পুনঃখনন, আলাইকুমারী নদী পুনঃখনন, পীরগাছা চৌধুরানী জিসি হতে শঠিবাড়ি আরএইডি ৫৭৯ মি. সড়ক (পীরগাছা অংশ), পীরগঞ্জ ভেন্ডাবাড়ি হতে খালাশপীর জিসি সড়ক পুনর্নিমাণ, কাউনিয়া উপজেলার টেপামধুপুর জিসি হতে পাওটানা জিসি ভায়া ভায়ারহাট সড়ক পুনর্নিমাণ, মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীরহাট-পীরগাছা ভায়া বালারহাট সড়কের গোপালগঞ্জ ঘাটে ঘাঘট নদীর উপর ৯৬ মিটার পিএসসি গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ, গঙ্গাচড়া উপজেলার বুড়িরহাট জিসি-কাকিনা আরএইডি সড়কে ৪০ মি. আরসিসি ভেরিয়েবল ডেপথ গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ, কাউনিয়া উপজেলায় তিনতলা পল্লীমারী সরকার প্রাথমিক 

রংপুর জিলা স্কুল মাঠে বুধবার (২ আগস্ট) বিভাগীয় আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আয়োজকদের দাবি ওই জনসভা হবে জনসমুদ্র, যেখান থেকে নির্বাচনি প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী। এখন চলছে শেষ মুহূর্তে মাঠ, মঞ্চ সাজানোর কাজ।

রংপুর মহানগরীর ২১টি পয়েন্টে করা হয়েছে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা। এক হাজারের বেশি সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। প্রবেশ পথগুলোতে সন্দেহভাজন যানবাহন ও ব্যক্তিদের তল্লাশি করা চলছে। সর্বোচ্চ সতর্কতার সঙ্গে জনসভায় আসা-যাওয়া নির্বিঘ্ন করতে চায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

এদিকে প্রায় এক যুগ পর পীরগঞ্জের লালদীঘির পুত্রবধূ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসছেন রংপুরে। বধূবরণে আয়োজনের বিন্দুমাত্র কমতি নেই কোথাও। উজ্জ্বীবিত আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। প্রধানমন্ত্রীকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাসের ঢেউ বইছে।

জনসভা আওয়ামী লীগের হলেও মাঠে আগত নেতাকর্মীদের পিপাসা মেটাতে পানির বোতল হাতে থাকবে জাতীয় পার্টির। ইতোমধ্যে ২ লাখ ২৫ হাজার আধা লিটার পানির বোতল সরবরাহ করেছে দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে ফেস্টুন,ব্যানার, তোরণ আর বিলবোর্ড সাটিয়েছেন জাপার এই নেতা।

জনসভা সফল করতে সবধরণের সহযোগিতার কথাও জানিয়ে সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘদিন পর রংপুর আসছেন। আমরা দলমত নির্বিশেষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগতম জানানোর জন্য উদগ্রীব হয়ে আছি। জনসভাকে সফল করার জন্য আমরা আমাদের দলের পক্ষ থেকে যতটুকু সাধ্য দলকে অর্গানাইজড করে আমরা জনসভায় যাব। সেজন্য আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা রংপুর সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে প্রায় আড়াই লাখ বোতল পানির ব্যবস্থা করেছি। যাতে তীব্র রোদে কিছুটা হলেও মানুষ পিপাসা মিটিয়ে শান্তি পায়। এছাড়া সিটি কর্পোরেশনের অর্থায়নে আমরা জনসভায় আইনশৃঙখলা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সিসিটিভি ক্যামেরা বসিয়েছি। যেটা দেখভাল করবে মহানগর পুলিশ।

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় থাকতে পারে চমক

এদিকে জিলা স্কুল মাঠের জনসভামঞ্চ থেকে ২০১১ সালের মতো আবারও প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় চমক থাকতে পারে আওয়ামী লীগ এবং সরকারের বিভিন্ন সূত্রগুলো থেকে জানা গেছে। তথ্যমতে, তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন, শ্যামাসুন্দরী খাল খনন, রংপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর মেডিকেল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়, অর্থনৈতিক জোন, বন্ধ চিনিকল খুলে দেওয়াসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প বাস্তবায়নের ঘোষণা আসতে পারে জনসভা থেকে। এছাড়া ১ হাজার ২৪০ কোটি টাকার ২৭টি প্রকল্পের উদ্বোধন এবং নতুন করে আরও পাঁচটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জনসভায় বক্তৃতা দেওয়ার আগে তিনি এসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন।

রংপুর জেলা প্রশাসন সূত্র জানিয়েছে, কাজ শেষে প্রস্তুত হওয়া শেখ রাসেল মিডিয়া সেন্টার, শেখ রাসেল ইনডোর স্টেডিয়াম, শেখ রাসেল সুইমিংপুল, পীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন জলাশয়ের জলাবদ্ধতা নিরসন শীর্ষক প্রকল্প, বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স, পালিচড়া স্টেডিয়াম, নলেয়া নদী পুনঃখনন, আলাইকুমারী নদী পুনঃখনন, পীরগাছা চৌধুরানী জিসি হতে শঠিবাড়ি আরএইডি ৫৭৯ মি. সড়ক (পীরগাছা অংশ), পীরগঞ্জ ভেন্ডাবাড়ি হতে খালাশপীর জিসি সড়ক পুনর্নিমাণ, কাউনিয়া উপজেলার টেপামধুপুর জিসি হতে পাওটানা জিসি ভায়া ভায়ারহাট সড়ক পুনর্নিমাণ, মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীরহাট-পীরগাছা ভায়া বালারহাট সড়কের গোপালগঞ্জ ঘাটে ঘাঘট নদীর উপর ৯৬ মিটার পিএসসি গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ, গঙ্গাচড়া উপজেলার বুড়িরহাট জিসি-কাকিনা আরএইডি সড়কে ৪০ মি. আরসিসি ভেরিয়েবল ডেপথ গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ, কাউনিয়া উপজেলায় তিনতলা পল্লীমারী সরকার প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম ফ্লাড শেল্টার নির্মাণ, রংপুর মেডিকেল কলেজ মাল্টিপারপাস ভবন, বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় ভবন, মিঠাপুকুরের পায়রাবন্দ ইউনিয়নে ১০ শয্যাবিশিষ্ট বেগম রোকেয়া মর্ডান হাসপাতাল, হেলেঞ্চা ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র, পীরগঞ্জের চতরা ইউনিয়নে ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র, খালাশপীরে ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র, মাদারগঞ্জে ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে ডিমলা এ্যাসফল্ট প্লান্ট ও স্টোর ইয়ার্ড নির্মাণ, ভারারদহ বিল, পাটোয়া কামরী বিল পুনঃখনন, চিতলী বিল পুনঃখনন, রংপুর সিটি কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, নৈমুন্না বিল পুনঃখননের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এছাড়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার নির্মাণ, রংপুর জেলায় বিটাক কেন্দ্র স্থাপন, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন সচিবালয়ের রংপুর আঞ্চলিক কার্যালয়, রংপুর কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অফিস ভবন এবং লেডিস হোস্টেলের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন।

প্রধানমন্ত্রীর কাছে রংপুরবাসীর যতো চাওয়া
রংপুর বিভাগবাসীর পক্ষ থেকে নানাভাবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যেসব দাবি জানানো হচ্ছে, তার মধ্যে রয়েছে তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন, শ্যামা সুন্দরী খাল খনন, বন্ধ চারটি চিনিকল খুলে দেয়া, রংপুর বিভাগের ৬টিস্থল বন্দর আধুনিকায়ন, অর্থনৈতিক জোন, কৃষি নির্ভর শিল্প প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শুরু, রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালকে ১০০০ বেডে উন্নীত করা, রংপুর মেডিকেল বিশ্ববিদ্যায় প্রতিষ্ঠা, সদর হাসপাতালে ৫০০ শয্যার হাসপাতাল করা, দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালকে ১ হাজার বেডে উন্নীত করা, কারিগরি শিক্ষা ইন্সটিটিউট গড়ে তোলা, রংপুর থেকে সরাসরি ব্রড গেজের রেল লাইন নির্মান ও ট্রেনের সংখ্যা বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান তৈরি করা, পাইপলাইনে গ্যাস সরবরাহ, ভারি শিল্প কলকারখানা প্রতিষ্ঠা করা, ব্রক্ষ্মপুত্র নদের ওপর প্রস্তাবিত সেতু বাস্তবায়ন, জামালপুর-রৌমারী ও চিলমারী-পঞ্চগড় রেল সংযোগ স্থাপনসহ বিভিন্ন দাবি।

প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বশেষ রংপুরে এসেছিলেন ২০১৮ সালের ২৩ ডিসেম্বর। এ সময় তিনি রংপুরের পীরগঞ্জ ও তারাগঞ্জে দুটি নির্বাচনী জনসভা করেন। সাড়ে ৪ বছরের বেশি সময় পর তিনি আবার রংপুরে আসছেন। এর আগে ২০১১ সালের ৮ জানুয়ারি রংপুর জিলা স্কুল মাঠে মহাজোটের জনসভায় উন্নয়নের দায়িত্ব কাঁধে নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় মাঠে থাকবে জাতীয় পার্টি,থাকবে চমক

আপডেট সময় : ০৯:০৭:২৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১ অগাস্ট ২০২৩

নবিজুল ইসলাম নবীন,নীলফামারী প্রতিনিধি।

রংপুর জেলা স্কুল মাঠে বুধবার (২ আগস্ট) বিভাগীয় আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আয়োজকদের দাবি ওই জনসভা হবে জনসমুদ্র, যেখান থেকে নির্বাচনি প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী। এখন চলছে শেষ মুহূর্তে মাঠ, মঞ্চ সাজানোর কাজ।

রংপুর মহানগরীর ২১টি পয়েন্টে করা হয়েছে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা। এক হাজারের বেশি সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। প্রবেশ পথগুলোতে সন্দেহভাজন যানবাহন ও ব্যক্তিদের তল্লাশি করা চলছে। সর্বোচ্চ সতর্কতার সঙ্গে জনসভায় আসা-যাওয়া নির্বিঘ্ন করতে চায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

এদিকে প্রায় এক যুগ পর পীরগঞ্জের লালদীঘির পুত্রবধূ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসছেন রংপুরে। বধূবরণে আয়োজনের বিন্দুমাত্র কমতি নেই কোথাও। উজ্জ্বীবিত আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। প্রধানমন্ত্রীকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাসের ঢেউ বইছে।

জনসভা আওয়ামী লীগের হলেও মাঠে আগত নেতাকর্মীদের পিপাসা মেটাতে পানির বোতল হাতে থাকবে জাতীয় পার্টির। ইতোমধ্যে ২ লাখ ২৫ হাজার আধা লিটার পানির বোতল সরবরাহ করেছে দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে ফেস্টুন,ব্যানার, তোরণ আর বিলবোর্ড সাটিয়েছেন জাপার এই নেতা।

জনসভা সফল করতে সবধরণের সহযোগিতার কথাও জানিয়ে সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘদিন পর রংপুর আসছেন। আমরা দলমত নির্বিশেষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগতম জানানোর জন্য উদগ্রীব হয়ে আছি। জনসভাকে সফল করার জন্য আমরা আমাদের দলের পক্ষ থেকে যতটুকু সাধ্য দলকে অর্গানাইজড করে আমরা জনসভায় যাব। সেজন্য আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা রংপুর সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে প্রায় আড়াই লাখ বোতল পানির ব্যবস্থা করেছি। যাতে তীব্র রোদে কিছুটা হলেও মানুষ পিপাসা মিটিয়ে শান্তি পায়। এছাড়া সিটি কর্পোরেশনের অর্থায়নে আমরা জনসভায় আইনশৃঙখলা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সিসিটিভি ক্যামেরা বসিয়েছি। যেটা দেখভাল করবে মহানগর পুলিশ।

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় থাকতে পারে চমক 

এদিকে জিলা স্কুল মাঠের জনসভামঞ্চ থেকে ২০১১ সালের মতো আবারও প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় চমক থাকতে পারে আওয়ামী লীগ এবং সরকারের বিভিন্ন সূত্রগুলো থেকে জানা গেছে। তথ্যমতে, তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন, শ্যামাসুন্দরী খাল খনন, রংপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর মেডিকেল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়, অর্থনৈতিক জোন, বন্ধ চিনিকল খুলে দেওয়াসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প বাস্তবায়নের ঘোষণা আসতে পারে জনসভা থেকে।

এছাড়া ১ হাজার ২৪০ কোটি টাকার ২৭টি প্রকল্পের উদ্বোধন এবং নতুন করে আরও পাঁচটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জনসভায় বক্তৃতা দেওয়ার আগে তিনি এসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন।

রংপুর জেলা প্রশাসন সূত্র জানিয়েছে, কাজ শেষে প্রস্তুত হওয়া শেখ রাসেল মিডিয়া সেন্টার, শেখ রাসেল ইনডোর স্টেডিয়াম, শেখ রাসেল সুইমিংপুল, পীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন জলাশয়ের জলাবদ্ধতা নিরসন শীর্ষক প্রকল্প, বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স, পালিচড়া স্টেডিয়াম, নলেয়া নদী পুনঃখনন, আলাইকুমারী নদী পুনঃখনন, পীরগাছা চৌধুরানী জিসি হতে শঠিবাড়ি আরএইডি ৫৭৯ মি. সড়ক (পীরগাছা অংশ), পীরগঞ্জ ভেন্ডাবাড়ি হতে খালাশপীর জিসি সড়ক পুনর্নিমাণ, কাউনিয়া উপজেলার টেপামধুপুর জিসি হতে পাওটানা জিসি ভায়া ভায়ারহাট সড়ক পুনর্নিমাণ, মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীরহাট-পীরগাছা ভায়া বালারহাট সড়কের গোপালগঞ্জ ঘাটে ঘাঘট নদীর উপর ৯৬ মিটার পিএসসি গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ, গঙ্গাচড়া উপজেলার বুড়িরহাট জিসি-কাকিনা আরএইডি সড়কে ৪০ মি. আরসিসি ভেরিয়েবল ডেপথ গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ, কাউনিয়া উপজেলায় তিনতলা পল্লীমারী সরকার প্রাথমিক 

রংপুর জিলা স্কুল মাঠে বুধবার (২ আগস্ট) বিভাগীয় আওয়ামী লীগের জনসভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আয়োজকদের দাবি ওই জনসভা হবে জনসমুদ্র, যেখান থেকে নির্বাচনি প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী। এখন চলছে শেষ মুহূর্তে মাঠ, মঞ্চ সাজানোর কাজ।

রংপুর মহানগরীর ২১টি পয়েন্টে করা হয়েছে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা। এক হাজারের বেশি সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। প্রবেশ পথগুলোতে সন্দেহভাজন যানবাহন ও ব্যক্তিদের তল্লাশি করা চলছে। সর্বোচ্চ সতর্কতার সঙ্গে জনসভায় আসা-যাওয়া নির্বিঘ্ন করতে চায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

এদিকে প্রায় এক যুগ পর পীরগঞ্জের লালদীঘির পুত্রবধূ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসছেন রংপুরে। বধূবরণে আয়োজনের বিন্দুমাত্র কমতি নেই কোথাও। উজ্জ্বীবিত আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। প্রধানমন্ত্রীকে ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে বাঁধভাঙ্গা উচ্ছ্বাসের ঢেউ বইছে।

জনসভা আওয়ামী লীগের হলেও মাঠে আগত নেতাকর্মীদের পিপাসা মেটাতে পানির বোতল হাতে থাকবে জাতীয় পার্টির। ইতোমধ্যে ২ লাখ ২৫ হাজার আধা লিটার পানির বোতল সরবরাহ করেছে দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়ে ফেস্টুন,ব্যানার, তোরণ আর বিলবোর্ড সাটিয়েছেন জাপার এই নেতা।

জনসভা সফল করতে সবধরণের সহযোগিতার কথাও জানিয়ে সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘদিন পর রংপুর আসছেন। আমরা দলমত নির্বিশেষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগতম জানানোর জন্য উদগ্রীব হয়ে আছি। জনসভাকে সফল করার জন্য আমরা আমাদের দলের পক্ষ থেকে যতটুকু সাধ্য দলকে অর্গানাইজড করে আমরা জনসভায় যাব। সেজন্য আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, আমরা রংপুর সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে প্রায় আড়াই লাখ বোতল পানির ব্যবস্থা করেছি। যাতে তীব্র রোদে কিছুটা হলেও মানুষ পিপাসা মিটিয়ে শান্তি পায়। এছাড়া সিটি কর্পোরেশনের অর্থায়নে আমরা জনসভায় আইনশৃঙখলা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সিসিটিভি ক্যামেরা বসিয়েছি। যেটা দেখভাল করবে মহানগর পুলিশ।

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় থাকতে পারে চমক

এদিকে জিলা স্কুল মাঠের জনসভামঞ্চ থেকে ২০১১ সালের মতো আবারও প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় চমক থাকতে পারে আওয়ামী লীগ এবং সরকারের বিভিন্ন সূত্রগুলো থেকে জানা গেছে। তথ্যমতে, তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন, শ্যামাসুন্দরী খাল খনন, রংপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর মেডিকেল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়, অর্থনৈতিক জোন, বন্ধ চিনিকল খুলে দেওয়াসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প বাস্তবায়নের ঘোষণা আসতে পারে জনসভা থেকে। এছাড়া ১ হাজার ২৪০ কোটি টাকার ২৭টি প্রকল্পের উদ্বোধন এবং নতুন করে আরও পাঁচটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জনসভায় বক্তৃতা দেওয়ার আগে তিনি এসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেন।

রংপুর জেলা প্রশাসন সূত্র জানিয়েছে, কাজ শেষে প্রস্তুত হওয়া শেখ রাসেল মিডিয়া সেন্টার, শেখ রাসেল ইনডোর স্টেডিয়াম, শেখ রাসেল সুইমিংপুল, পীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন জলাশয়ের জলাবদ্ধতা নিরসন শীর্ষক প্রকল্প, বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স, পালিচড়া স্টেডিয়াম, নলেয়া নদী পুনঃখনন, আলাইকুমারী নদী পুনঃখনন, পীরগাছা চৌধুরানী জিসি হতে শঠিবাড়ি আরএইডি ৫৭৯ মি. সড়ক (পীরগাছা অংশ), পীরগঞ্জ ভেন্ডাবাড়ি হতে খালাশপীর জিসি সড়ক পুনর্নিমাণ, কাউনিয়া উপজেলার টেপামধুপুর জিসি হতে পাওটানা জিসি ভায়া ভায়ারহাট সড়ক পুনর্নিমাণ, মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীরহাট-পীরগাছা ভায়া বালারহাট সড়কের গোপালগঞ্জ ঘাটে ঘাঘট নদীর উপর ৯৬ মিটার পিএসসি গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ, গঙ্গাচড়া উপজেলার বুড়িরহাট জিসি-কাকিনা আরএইডি সড়কে ৪০ মি. আরসিসি ভেরিয়েবল ডেপথ গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ, কাউনিয়া উপজেলায় তিনতলা পল্লীমারী সরকার প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম ফ্লাড শেল্টার নির্মাণ, রংপুর মেডিকেল কলেজ মাল্টিপারপাস ভবন, বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয় ভবন, মিঠাপুকুরের পায়রাবন্দ ইউনিয়নে ১০ শয্যাবিশিষ্ট বেগম রোকেয়া মর্ডান হাসপাতাল, হেলেঞ্চা ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র, পীরগঞ্জের চতরা ইউনিয়নে ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র, খালাশপীরে ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র, মাদারগঞ্জে ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে ডিমলা এ্যাসফল্ট প্লান্ট ও স্টোর ইয়ার্ড নির্মাণ, ভারারদহ বিল, পাটোয়া কামরী বিল পুনঃখনন, চিতলী বিল পুনঃখনন, রংপুর সিটি কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, নৈমুন্না বিল পুনঃখননের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এছাড়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার নির্মাণ, রংপুর জেলায় বিটাক কেন্দ্র স্থাপন, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন সচিবালয়ের রংপুর আঞ্চলিক কার্যালয়, রংপুর কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অফিস ভবন এবং লেডিস হোস্টেলের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন।

প্রধানমন্ত্রীর কাছে রংপুরবাসীর যতো চাওয়া
রংপুর বিভাগবাসীর পক্ষ থেকে নানাভাবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে যেসব দাবি জানানো হচ্ছে, তার মধ্যে রয়েছে তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়ন, শ্যামা সুন্দরী খাল খনন, বন্ধ চারটি চিনিকল খুলে দেয়া, রংপুর বিভাগের ৬টিস্থল বন্দর আধুনিকায়ন, অর্থনৈতিক জোন, কৃষি নির্ভর শিল্প প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শুরু, রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালকে ১০০০ বেডে উন্নীত করা, রংপুর মেডিকেল বিশ্ববিদ্যায় প্রতিষ্ঠা, সদর হাসপাতালে ৫০০ শয্যার হাসপাতাল করা, দিনাজপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালকে ১ হাজার বেডে উন্নীত করা, কারিগরি শিক্ষা ইন্সটিটিউট গড়ে তোলা, রংপুর থেকে সরাসরি ব্রড গেজের রেল লাইন নির্মান ও ট্রেনের সংখ্যা বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান তৈরি করা, পাইপলাইনে গ্যাস সরবরাহ, ভারি শিল্প কলকারখানা প্রতিষ্ঠা করা, ব্রক্ষ্মপুত্র নদের ওপর প্রস্তাবিত সেতু বাস্তবায়ন, জামালপুর-রৌমারী ও চিলমারী-পঞ্চগড় রেল সংযোগ স্থাপনসহ বিভিন্ন দাবি।

প্রসঙ্গত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বশেষ রংপুরে এসেছিলেন ২০১৮ সালের ২৩ ডিসেম্বর। এ সময় তিনি রংপুরের পীরগঞ্জ ও তারাগঞ্জে দুটি নির্বাচনী জনসভা করেন। সাড়ে ৪ বছরের বেশি সময় পর তিনি আবার রংপুরে আসছেন। এর আগে ২০১১ সালের ৮ জানুয়ারি রংপুর জিলা স্কুল মাঠে মহাজোটের জনসভায় উন্নয়নের দায়িত্ব কাঁধে নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।