ঢাকা ০৯:১২ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীপুরে ঈদ পুনর্মিলনী ক্রিকেট টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত ঢাকার বুকে মাগুরা জেলার প্রতিনিধিত্বকারী এক গর্ব ও অহংকারের নাম মাগুরা লায়ন্স ক্রিকেট ক্লাব শ্রীপুরে সবুজ আন্দোলনের ঈদ সামগ্রী বিতরণ বিআরটিসির বাসেও চলছে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় সৌদির সঙ্গে কাল বাংলাদেশেও হতে পারে ঈদ শ্রীপুরে দেশ ও প্রবাসী সমন্বয় কল্যাণ তহবিলের ঈদ সামগ্রী বিতরণ বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডের কারণ জানাল ফায়ার সার্ভিস চৌদ্দগ্রামে আলকরা প্রবাসী কল্যাণ’র উদ্যাগে ইমাম খতিবদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরন ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত ফ্রিতে সিম কিনে বিপাকে অর্ধশত পরিবার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন ছাত্র উপদেষ্টার দায়িত্ব হস্তান্তর
ব্রেকিং নিউজ ::

 ৭কলেজের ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু: ২১ মার্চ ২০২৪,আবেদন শেষ: ২৫ এপ্রিল ২০২৪ * এ বছর জনপ্রতি ফিতরার হার সর্বনিন্ম ১১৫ টাকা এবং সর্বোচ্চ ২৯৭০ টাকা *

ভেঙে পড়ল ভারতের দীর্ঘতম সেতু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক৷
  • আপডেট সময় : ০১:০৭:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৮ মার্চ ২০২৪
  • / ৩৬৩১ বার পড়া হয়েছে
বাংলাদেশের বার্তা অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

সাম্প্রতিক সময়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভারতের ইতিহাতে দীর্ঘতম হাইপ্রোফাইল সেতুটি উদ্বোধন করেন। তখন তিনি বলেছিলেন ভারত সব পারে। কিন্তু তার এই কথার কয়েকদিনের মধ্যেই ভেঙে পড়লো অহংকারের সেতুটি।

জানা যায়, ভারতের বিহার রাজ্যে একটি নির্মাণাধীন সেতু ভেঙে অন্তত একজন নিহত এবং ১০ জন আহত হয়েছেন। রাজ্যটির সুপৌল জেলায় অবস্থিত ওই সেতুটি কোশি নদীর উপরে নির্মাণ করা হচ্ছিল।এটিকে ‘হাইপ্রোফাইল সেতু’ বলে অভিহিত করেছে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো।

হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে, সুপৌল জেলার বকৌর থেকে মধুবনী জেলার ভেজার মধ্যেকার এই সেতুটি হতে যাচ্ছিল ভারতের দীর্ঘতম সড়ক সেতু। তবে শুক্রবার ওই নির্মাণাধীন সেতুর একাংশ ভেঙে পড়েছে। জানা গেছে, সেতুর ৫০, ৫১ ও ৫২ নম্বর পিলারের গার্ডার ভেঙে পড়েছে। এতেই হতাহতের ঘটনা ঘটে। এছাড়া প্রায় ৪০ শ্রমিক সাময়িক সময়ের জন্য আটকা পড়েছিলেন। খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

সুপৌল জেলার কর্মকর্তা কৌশল কুমার একজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন। এছাড়া আরও ৯ জন আহত হয়েছেন বলে জানান তিনি। এই দুর্ঘটনার পর সেতু নির্মাণের ক্ষেত্রে যে সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছিল তার গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। বিশেষত ওই সেতু বেশ হাইপ্রোফাইল ছিল। কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহন মন্ত্রকের তত্ত্বাবধানে যৌথভাবে প্রায় এক হাজার কোটি রুপি মূল্যে ১০.২ কিলোমিটারের সেতুটি নির্মাণ করছে। গ্যামন ইন্ডিয়া এবং ট্রান্স রেল লাইটিং লিমিটেড।

প্রাথমিকভাবে ২০২৩ সালেই এর নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কোভিড মহামারির জন্য ডেডলাইন পিছিয়ে দেয়া হয়। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই সেতুর কাজ শেষ হয়ে যাবে। যদিও ভেঙে পড়ায় সেই সময় আরও বাড়তে পারে। এর আগে গত বছর জুন মাসে বিহারের ভাগলপুরে আরেকটি সেতু ভেঙে পড়েছিল।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

ভেঙে পড়ল ভারতের দীর্ঘতম সেতু

আপডেট সময় : ০১:০৭:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৮ মার্চ ২০২৪

সাম্প্রতিক সময়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভারতের ইতিহাতে দীর্ঘতম হাইপ্রোফাইল সেতুটি উদ্বোধন করেন। তখন তিনি বলেছিলেন ভারত সব পারে। কিন্তু তার এই কথার কয়েকদিনের মধ্যেই ভেঙে পড়লো অহংকারের সেতুটি।

জানা যায়, ভারতের বিহার রাজ্যে একটি নির্মাণাধীন সেতু ভেঙে অন্তত একজন নিহত এবং ১০ জন আহত হয়েছেন। রাজ্যটির সুপৌল জেলায় অবস্থিত ওই সেতুটি কোশি নদীর উপরে নির্মাণ করা হচ্ছিল।এটিকে ‘হাইপ্রোফাইল সেতু’ বলে অভিহিত করেছে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো।

হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে, সুপৌল জেলার বকৌর থেকে মধুবনী জেলার ভেজার মধ্যেকার এই সেতুটি হতে যাচ্ছিল ভারতের দীর্ঘতম সড়ক সেতু। তবে শুক্রবার ওই নির্মাণাধীন সেতুর একাংশ ভেঙে পড়েছে। জানা গেছে, সেতুর ৫০, ৫১ ও ৫২ নম্বর পিলারের গার্ডার ভেঙে পড়েছে। এতেই হতাহতের ঘটনা ঘটে। এছাড়া প্রায় ৪০ শ্রমিক সাময়িক সময়ের জন্য আটকা পড়েছিলেন। খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

সুপৌল জেলার কর্মকর্তা কৌশল কুমার একজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন। এছাড়া আরও ৯ জন আহত হয়েছেন বলে জানান তিনি। এই দুর্ঘটনার পর সেতু নির্মাণের ক্ষেত্রে যে সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছিল তার গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। বিশেষত ওই সেতু বেশ হাইপ্রোফাইল ছিল। কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহন মন্ত্রকের তত্ত্বাবধানে যৌথভাবে প্রায় এক হাজার কোটি রুপি মূল্যে ১০.২ কিলোমিটারের সেতুটি নির্মাণ করছে। গ্যামন ইন্ডিয়া এবং ট্রান্স রেল লাইটিং লিমিটেড।

প্রাথমিকভাবে ২০২৩ সালেই এর নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কোভিড মহামারির জন্য ডেডলাইন পিছিয়ে দেয়া হয়। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যেই সেতুর কাজ শেষ হয়ে যাবে। যদিও ভেঙে পড়ায় সেই সময় আরও বাড়তে পারে। এর আগে গত বছর জুন মাসে বিহারের ভাগলপুরে আরেকটি সেতু ভেঙে পড়েছিল।