ঢাকা ০৫:১১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজ ::
চৌদ্দগ্রামে নামাজরত অবস্থায় ইমামকে কুপিয়ে জখম রাখাইনে সংঘাত ও সেন্টমার্টিন পরিস্থিতি | ব্রিঃ জেঃ হাসান মোঃ শামসুদ্দীন (অবঃ) নীলফামারীতে মাদ্রাসার শিক্ষককে কুপিয়ে জখম  চৌদ্দগ্রামে দাফনের ৭ দিন পর বাড়ি ফিরলেন রোকসানা নামের এক তরুণী নৌকা বিকল হয়ে মেঘনায় আটকে ছিল সাত ছাত্র, ৯৯৯ নম্বরে ফোন কলে উদ্ধার শ্রীপুরে ক্যাপিটেশন প্লান্টের চেক বিতরণ কথা বলছে’ গাছ, ভেসে আসছে নারী কণ্ঠের আর্তনাদ বাইশরশি বিশ্ব জাকের মঞ্জিলে জাকের পার্টির ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত চৌদ্দগ্রামে গাঁজা-ইয়াবা উদ্ধার, কথিত সাংবাদিকসহ আটক ১৩ স্বাধীনতার আগে মারা যাওয়া ব্যক্তিকে ২০১৫ সালে ঋণ দিয়েছে কৃষি ব্যাংক

মালয়েশিয়াগামী ট্রলার ডুবি:/ ৩ নারীর লাশ উদ্ধার

বাংলাদেশের বার্তা
  • আপডেট সময় : ০২:৩৫:৩২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর ২০২২
  • / ৯৬১৩ বার পড়া হয়েছে
বাংলাদেশের বার্তা অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আজিজ উদ্দিন।।

কক্সবাজার টেকনাফ উপজেলার বঙ্গোপসাগরে মালয়েশিয়া গামী ট্রলার ডুবির ঘটনায় ৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে আরো ৪৫ জনকে। এরমধ্যে ৪ জন স্থানীয় বাংলাদেশী দালাল চক্রের সদস্য। তাদের বাড়ি উখিয়া, টেকনাফ ও মহেশখালী উপজেলার। উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গারা উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পের বাসিন্দা। এরমধ্যে ৮ জন নারী রয়েছে।

মঙ্গলবার(০৪অক্টোবর) সকালে টেকনাফের বাহারছড়া হলবনিয়া এলাকা থেকে তাদের উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধার রোহিঙ্গারা জানান, দালালের মাধ্যমে তারা মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য রওনা দেয়৷ বিভিন্ন ছোট ছোট নৌকাতে করে বড় ট্রলারে তোলার পর এক পর্যায়ে নিচের পাঠাটন ছিদ্র হয়ে পানি ঢুকে ওই ট্রলারটি ডুবে যায়৷

সেখানে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ জন ছিলো বলে দাবী করেন উদ্ধাকৃতরা। সাঁতার কেটে অনেকে কূলে উঠে গেলেও কয়েকজন মারা গেছে বলে দাবী করেন তারা।

এছাড়া উদ্ধার ৪ দালাল টেকনাফ, উখিয়া এবং মহেশখালীর বাসিন্দা। তারা নিজেদের দালাল নয় বলে দাবী করলেও ট্রলারে থাকা রোহিঙ্গারা বলছেন এরাই তাদের নিয়ে যাচ্ছিলেন মালয়েশিয়া।
একজন রোহিঙ্গা বলেন, আমাদেরকে ৪দিন আগে বিভিন্ন ক্যাম্প থেকে এনে টেকনাফের একটি বাড়িতে বন্ধি করে রাখে।

এরপর গতকাল রাতে ছোট ছোট নৌকা দিয়ে বড় ট্রলারে তুলে। আজ ফজরের সময় বড় ট্রলারটি কিছুদুর যাওয়ার পর আসতে আসতে পানিতে ডুবে যায়। রোহিঙ্গা নারী বলেন, আমরা ১৫জন মহিলা ছিলাম। তিনজন সাগরের পানি খেয়ে মারা গেছে। আমরা এইখানে ৮জন আছি। বাকি গুলো কোথায় জানিনা।

এদিকে স্থানীয় বাহারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন খোকন ট্রলার ডুবির এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত বিভিন্নভাবে ৪৫ জনকে উদ্ধার করার কথা জানান। পুলিশ এবং কোস্টগার্ড উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছেন বলে জানান এই জনপ্রতিনিধি।

টেকনাফ থানার আওতাধীন বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নুরুল আলম জানান, আমরা খবর পেয়ে হলবনিয়া এলাকাতে এসে দেখতে পায় কোস্ট গার্ড মালয়েশিয়া যাত্রাকালে ৪৫জনকে আটক করে রেখেছে।তারমধ্যে দালাল ৪জনকে আমাদের হাতে তুলে দেন।

এইচ/কে

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

মালয়েশিয়াগামী ট্রলার ডুবি:/ ৩ নারীর লাশ উদ্ধার

আপডেট সময় : ০২:৩৫:৩২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৪ অক্টোবর ২০২২

আজিজ উদ্দিন।।

কক্সবাজার টেকনাফ উপজেলার বঙ্গোপসাগরে মালয়েশিয়া গামী ট্রলার ডুবির ঘটনায় ৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে আরো ৪৫ জনকে। এরমধ্যে ৪ জন স্থানীয় বাংলাদেশী দালাল চক্রের সদস্য। তাদের বাড়ি উখিয়া, টেকনাফ ও মহেশখালী উপজেলার। উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গারা উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পের বাসিন্দা। এরমধ্যে ৮ জন নারী রয়েছে।

মঙ্গলবার(০৪অক্টোবর) সকালে টেকনাফের বাহারছড়া হলবনিয়া এলাকা থেকে তাদের উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধার রোহিঙ্গারা জানান, দালালের মাধ্যমে তারা মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য রওনা দেয়৷ বিভিন্ন ছোট ছোট নৌকাতে করে বড় ট্রলারে তোলার পর এক পর্যায়ে নিচের পাঠাটন ছিদ্র হয়ে পানি ঢুকে ওই ট্রলারটি ডুবে যায়৷

সেখানে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ জন ছিলো বলে দাবী করেন উদ্ধাকৃতরা। সাঁতার কেটে অনেকে কূলে উঠে গেলেও কয়েকজন মারা গেছে বলে দাবী করেন তারা।

এছাড়া উদ্ধার ৪ দালাল টেকনাফ, উখিয়া এবং মহেশখালীর বাসিন্দা। তারা নিজেদের দালাল নয় বলে দাবী করলেও ট্রলারে থাকা রোহিঙ্গারা বলছেন এরাই তাদের নিয়ে যাচ্ছিলেন মালয়েশিয়া।
একজন রোহিঙ্গা বলেন, আমাদেরকে ৪দিন আগে বিভিন্ন ক্যাম্প থেকে এনে টেকনাফের একটি বাড়িতে বন্ধি করে রাখে।

এরপর গতকাল রাতে ছোট ছোট নৌকা দিয়ে বড় ট্রলারে তুলে। আজ ফজরের সময় বড় ট্রলারটি কিছুদুর যাওয়ার পর আসতে আসতে পানিতে ডুবে যায়। রোহিঙ্গা নারী বলেন, আমরা ১৫জন মহিলা ছিলাম। তিনজন সাগরের পানি খেয়ে মারা গেছে। আমরা এইখানে ৮জন আছি। বাকি গুলো কোথায় জানিনা।

এদিকে স্থানীয় বাহারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন খোকন ট্রলার ডুবির এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত বিভিন্নভাবে ৪৫ জনকে উদ্ধার করার কথা জানান। পুলিশ এবং কোস্টগার্ড উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছেন বলে জানান এই জনপ্রতিনিধি।

টেকনাফ থানার আওতাধীন বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নুরুল আলম জানান, আমরা খবর পেয়ে হলবনিয়া এলাকাতে এসে দেখতে পায় কোস্ট গার্ড মালয়েশিয়া যাত্রাকালে ৪৫জনকে আটক করে রেখেছে।তারমধ্যে দালাল ৪জনকে আমাদের হাতে তুলে দেন।

এইচ/কে