ঢাকা ০৯:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৯ নম্বর ও মোংলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হতে পারে যেসব জেলায় শাহজালাল বিমানবন্দরে ৫ কোটি টাকার স্বর্ণ জব্দ চৌদ্দগ্রামে উপজেলা পর্যায় শ্রেষ্ঠ শ্রেণী শিক্ষক সামছুদ্দিন আহমেদ ইরান রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে শোক বই “জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের” পক্ষে শোক প্রকাশ শ্রীপুরে ছাত্রীকে কু-প্রস্তাব দিয়ে শিক্ষকের চিঠি প্রতিবাদ করায় পিতাকে কুপিয়ে জখম হেলিকপ্টার বিদ্ধস্ত হয়ে ইরানের প্রেসিডেন্ট নিহত ‘জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের”শোক কীভাবে বিধ্বস্ত হলো ইরানি প্রেসিডেন্ট রাইসির হেলিকপ্টার? হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত ইরানের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‌’মারা গেছেন’ ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসির মৃত্যু নিয়ে অবশেষে মুখ খুললো ইসরায়েল
সংবাদ শিরোনাম ::
চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৯ নম্বর ও মোংলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হতে পারে যেসব জেলায় শাহজালাল বিমানবন্দরে ৫ কোটি টাকার স্বর্ণ জব্দ চৌদ্দগ্রামে উপজেলা পর্যায় শ্রেষ্ঠ শ্রেণী শিক্ষক সামছুদ্দিন আহমেদ ইরান রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে শোক বই “জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের” পক্ষে শোক প্রকাশ শ্রীপুরে ছাত্রীকে কু-প্রস্তাব দিয়ে শিক্ষকের চিঠি প্রতিবাদ করায় পিতাকে কুপিয়ে জখম হেলিকপ্টার বিদ্ধস্ত হয়ে ইরানের প্রেসিডেন্ট নিহত ‘জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের”শোক কীভাবে বিধ্বস্ত হলো ইরানি প্রেসিডেন্ট রাইসির হেলিকপ্টার? হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত ইরানের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‌’মারা গেছেন’ ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসির মৃত্যু নিয়ে অবশেষে মুখ খুললো ইসরায়েল

সামছেল মোল্লার হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:২৭:৫৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৮ জুন ২০২৩
  • / ৩৬১৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলাদেশের বার্তা অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

রানা অর্নব, সদরপুর (ফরিদপুর) প্রতিনিধিঃ

ভাঙ্গায় সামছেল মোল্লা হত্যার বিচার ও আসামীদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন করা হয়। আজ দুপুরে ভাঙ্গা-সদরপুর সড়কের মানিকদহ বাজারে এ মানববন্ধন করেন নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসী।

মানববন্ধনে নিহতের বৃদ্ধ মা সাফিয়া বেগম অভিযোগ করে বলেন, তার ছেলেকে পরিকল্পিত ভাবে আসামিরা হত্যা করেছে। সে জমি বিক্রির সাড়ে ৩ লাখ টাকা আনতে পুখুরিয়া বাসষ্ট্যান্ডে গেলে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেন স্থানীয় ফরিদ শেখ, সজল তালুকদার, জাহিদ ব্যাপারী, পাবেল মীর, আকতার মীরসহ ২০/৩০ জন।

পরে তার ছেলের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তুলে তাকে প্রকাশ্যে নির্মমভাবে কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করে তার ছেলের কাছে থাকা টাকা ছিনিয়ে নেয় আসামীরা । প্রকৃত ঘটনার তদন্তসহ একটি সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। নিহত সামছেল মোল্লার ১ম স্ত্রী ঝর্না বেগম বলেন, আমার ৪টি সন্তানকে যাহারা এতিম করেছে, তাদের ফাঁসি চাই।

আমি প্রথমে ভাঙ্গা থানায় মামলা করতে যাই, কিন্তু অভিযোগপত্রে দোষী কয়েকজনের নাম বাদ না দেওয়ায় পুলিশ আমার মামলা নেয়নি। পরে আমি ফরিদপুর কোর্টে গিয়ে ১৭ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করি। মামলা নম্বর ভাঙ্গা সিআর ১৮৩/২৩। তারিখ ২৫/৪/২০২৩। ২য় স্ত্রী বেবী বেগম বলেন, আমার ১ বছরের ১টি সন্তান রয়েছে। এই শিশু সন্তানের ভবিষ্যৎ কি হবে, সে আজ বাবা হারা হয়েছে। তার বাবার মৃত্যুর জন্য যারা দোষী, আমি তাদের ফাঁসি দাবি করছি। সামছেলের হত্যা মামলার বাদি ভাঙ্গা থানার এসআই অপূর্ব কুমার জানায়, সামছেলের মা ও ২ জন স্ত্রী থাকার কারনে তখন ৩ জনই বাদি হতে চায়।

তাই তাদের পরিবারিক সমস্যার কারনে পরে, আমি (পুলিশ) গত ২২ এপ্রিল বাদি হয়ে ১০০/১২০ জন অজ্ঞাতনামা ব্যাক্তিকে আসামি করে মামলা দায়ের করি। ভাঙ্গা থানা মামলা নং ৪০, তারিখ ২২/৪/২৩। পরে জানতে পারি, নিহতের পরিবার আদালতে আরেকটি মামলা করেছে। এ বিষয়ে ফরিদপুর নারী ও শিশু জজ আদালতের পিপি দুলাল চন্দ্র সরকার জানান, একই হত্যার ঘটনার ২টি মামলা হলে ২টি তদন্ত হবে। কিন্তু জটিলতা ও সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। যখন আলাদা আলাদা তদন্ত রিপোর্ট আসবে।

পরে ২টি মামলা এক সাথে চালাবে আদালত। উল্লেখ্য, চলতি বছরের গত (১৬ এপ্রিল) রাতে ভাঙ্গা উপজেলার পুখুরিয়া বাসষ্ট্যান্ডে ছেলে ধরা সন্দেহে সামছেলকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে নির্মম ভাবে হত্যার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এক সপ্তাহ পর পুলিশ বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা ১০০/১২০ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন । একই ঘটনায় ১১ দিন পর নিহতের স্ত্রী ঝর্না বেগম বাদি হয়ে ফরিদপুর আদালতে ১৭ জনের নামে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

সামছেল মোল্লার হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

আপডেট সময় : ০২:২৭:৫৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৮ জুন ২০২৩

রানা অর্নব, সদরপুর (ফরিদপুর) প্রতিনিধিঃ

ভাঙ্গায় সামছেল মোল্লা হত্যার বিচার ও আসামীদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন করা হয়। আজ দুপুরে ভাঙ্গা-সদরপুর সড়কের মানিকদহ বাজারে এ মানববন্ধন করেন নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসী।

মানববন্ধনে নিহতের বৃদ্ধ মা সাফিয়া বেগম অভিযোগ করে বলেন, তার ছেলেকে পরিকল্পিত ভাবে আসামিরা হত্যা করেছে। সে জমি বিক্রির সাড়ে ৩ লাখ টাকা আনতে পুখুরিয়া বাসষ্ট্যান্ডে গেলে তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেন স্থানীয় ফরিদ শেখ, সজল তালুকদার, জাহিদ ব্যাপারী, পাবেল মীর, আকতার মীরসহ ২০/৩০ জন।

পরে তার ছেলের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তুলে তাকে প্রকাশ্যে নির্মমভাবে কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যা করে তার ছেলের কাছে থাকা টাকা ছিনিয়ে নেয় আসামীরা । প্রকৃত ঘটনার তদন্তসহ একটি সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। নিহত সামছেল মোল্লার ১ম স্ত্রী ঝর্না বেগম বলেন, আমার ৪টি সন্তানকে যাহারা এতিম করেছে, তাদের ফাঁসি চাই।

আমি প্রথমে ভাঙ্গা থানায় মামলা করতে যাই, কিন্তু অভিযোগপত্রে দোষী কয়েকজনের নাম বাদ না দেওয়ায় পুলিশ আমার মামলা নেয়নি। পরে আমি ফরিদপুর কোর্টে গিয়ে ১৭ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করি। মামলা নম্বর ভাঙ্গা সিআর ১৮৩/২৩। তারিখ ২৫/৪/২০২৩। ২য় স্ত্রী বেবী বেগম বলেন, আমার ১ বছরের ১টি সন্তান রয়েছে। এই শিশু সন্তানের ভবিষ্যৎ কি হবে, সে আজ বাবা হারা হয়েছে। তার বাবার মৃত্যুর জন্য যারা দোষী, আমি তাদের ফাঁসি দাবি করছি। সামছেলের হত্যা মামলার বাদি ভাঙ্গা থানার এসআই অপূর্ব কুমার জানায়, সামছেলের মা ও ২ জন স্ত্রী থাকার কারনে তখন ৩ জনই বাদি হতে চায়।

তাই তাদের পরিবারিক সমস্যার কারনে পরে, আমি (পুলিশ) গত ২২ এপ্রিল বাদি হয়ে ১০০/১২০ জন অজ্ঞাতনামা ব্যাক্তিকে আসামি করে মামলা দায়ের করি। ভাঙ্গা থানা মামলা নং ৪০, তারিখ ২২/৪/২৩। পরে জানতে পারি, নিহতের পরিবার আদালতে আরেকটি মামলা করেছে। এ বিষয়ে ফরিদপুর নারী ও শিশু জজ আদালতের পিপি দুলাল চন্দ্র সরকার জানান, একই হত্যার ঘটনার ২টি মামলা হলে ২টি তদন্ত হবে। কিন্তু জটিলতা ও সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। যখন আলাদা আলাদা তদন্ত রিপোর্ট আসবে।

পরে ২টি মামলা এক সাথে চালাবে আদালত। উল্লেখ্য, চলতি বছরের গত (১৬ এপ্রিল) রাতে ভাঙ্গা উপজেলার পুখুরিয়া বাসষ্ট্যান্ডে ছেলে ধরা সন্দেহে সামছেলকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে নির্মম ভাবে হত্যার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এক সপ্তাহ পর পুলিশ বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা ১০০/১২০ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন । একই ঘটনায় ১১ দিন পর নিহতের স্ত্রী ঝর্না বেগম বাদি হয়ে ফরিদপুর আদালতে ১৭ জনের নামে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।