ঢাকা ০৯:১৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
১৯ উপজেলার নির্বাচন স্থগিত করেছে ইসি চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৯ নম্বর ও মোংলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হতে পারে যেসব জেলায় শাহজালাল বিমানবন্দরে ৫ কোটি টাকার স্বর্ণ জব্দ চৌদ্দগ্রামে উপজেলা পর্যায় শ্রেষ্ঠ শ্রেণী শিক্ষক সামছুদ্দিন আহমেদ ইরান রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে শোক বই “জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের” পক্ষে শোক প্রকাশ শ্রীপুরে ছাত্রীকে কু-প্রস্তাব দিয়ে শিক্ষকের চিঠি প্রতিবাদ করায় পিতাকে কুপিয়ে জখম হেলিকপ্টার বিদ্ধস্ত হয়ে ইরানের প্রেসিডেন্ট নিহত ‘জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের”শোক কীভাবে বিধ্বস্ত হলো ইরানি প্রেসিডেন্ট রাইসির হেলিকপ্টার? হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত ইরানের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‌’মারা গেছেন’
সংবাদ শিরোনাম ::
১৯ উপজেলার নির্বাচন স্থগিত করেছে ইসি চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৯ নম্বর ও মোংলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হতে পারে যেসব জেলায় শাহজালাল বিমানবন্দরে ৫ কোটি টাকার স্বর্ণ জব্দ চৌদ্দগ্রামে উপজেলা পর্যায় শ্রেষ্ঠ শ্রেণী শিক্ষক সামছুদ্দিন আহমেদ ইরান রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে শোক বই “জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের” পক্ষে শোক প্রকাশ শ্রীপুরে ছাত্রীকে কু-প্রস্তাব দিয়ে শিক্ষকের চিঠি প্রতিবাদ করায় পিতাকে কুপিয়ে জখম হেলিকপ্টার বিদ্ধস্ত হয়ে ইরানের প্রেসিডেন্ট নিহত ‘জাকের পার্টি চেয়ারম্যানের”শোক কীভাবে বিধ্বস্ত হলো ইরানি প্রেসিডেন্ট রাইসির হেলিকপ্টার? হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত ইরানের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‌’মারা গেছেন’

৪৩ বছর পরিত্যক্ত অবস্থায় ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:২৪:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুলাই ২০২৩
  • / ৩৬১০ বার পড়া হয়েছে
বাংলাদেশের বার্তা অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

মোঃ হাবিব, ঠাকুরগাঁও -সদর উপজেলা প্রতিনিধি। 

ব্রিটিশ আমলের স্থাপিত ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর চালু ছিল স্বাধীনতার পরও। তবে লোকের কারণে ১৯৭১ সালের দিকে এখানে বিমান ওঠানামা বন্ধ হয়ে যায়।

যাত্রী কম হওয়ায় অজুহাত দেখিয়ে ১৯৮০ সালে বিমানবন্দর টিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয় এরপর অনেক উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলা হলেও ৪৩ বছরেও এই বিমানবন্দর আর চালু হয়নি। বিমান ঘাঁটি টি গোচারণ ভূমিতে পরিণত হয়েছে। স্থানীয়দের দাবি আগামী সমৃদ্ধ কে ঠাকুরগাঁওয়ের অন্যতম স্মরণী হতে পারে এই বিমানবন্দরটি।

জেলার শিল্প কারখানা নির্মাণ থেকে শুরু করে ব্যবসায়িক কর্মচারণ বাড়াতে রাখতে পারে বিমানবন্দরটি বড় ভূমিকা। বিমানবন্দরটি জেলার শহর থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে সড়কের মাদরগঞ্জ এলাকায় অবস্থিত। ১৯৪০ সালের বাসনা এখন জমিতে বিমানবন্দরটি প্রতিষ্ঠান করা। বন্দরটি প্রথম রান হয়ে তিন কিলো মিটার এলাকা জুড়ে।

জানা যায় তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার বিমানবন্দরটি সামরিক কাজে ব্যবহার করার জন্য ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দরটি প্রতিষ্ঠান করেছিলেন। পাকিস্তান সরকার বিমানবন্দরটির জমি আর্মি স্টেট হিসেবে ঘোষণা করেন।

ঘোষণা দেওয়ার পর ১১১ একর জমি প্রায় সিভিল অভিয়েশন। ওই অংশে পরে ভবন ও রান হয়ে করা হয়। ১৯৬৫ সালে ভারত পাকিস্তান যুদ্ধের সময় ভারতীয় বিমান বাহিনী হামলায় বিমানবন্দরের ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এদিকে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরে ১৯৭৭ সালে লাইট পরিচালনার জন্য সংস্কার করা হয়। মাত্র দুই বছরে বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনা হলেও আগ্রহের অভাব এবং যাত্রী কম হয়ে যাওয়ায় ক্রম থেমে যায়।

১৯৮০ সালে ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর পরিত্যক্ত ঘোষণা। সেই তখন থেকে পরিত্যক্ত ও উন্মুক্ত অবস্থায় পড়ে আছে এই বিমানবন্দরটি স্থানীয়রা বিমানবন্দরের জমিতে লিস্ট নিয়ে বিভিন্ন ধরনের ফসল ফলিয়ে আসছে। এছাড়াও বিমানবন্দরের একটি ব্যবহার হচ্ছে কৃষকদের চাটার হিসেবে।

এদিকে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে পরিত্যাক্ত ঠাকুরগাঁও ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর অবকাঠামোর পরিদর্শন করেছি ছিলেন সরকারের সাবেক বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মিলন এবং ২০১৯ সালে এপ্রিল মাসের বিমানবন্দর পরিদর্শন করতে আসেন বর্তমান রেল পথ মন্ত্রী অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন।

তারা দুজন‌ই ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দ র চালু করার জন্য ব্যবস্থা নেওয়ার কথা আশ্বাস দেন। সেই আশ্বস্ত দীর্ঘদিন অব্যাহত হলেও বিমানবন্দরটি চালু বিষয়টি কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

স্থানীয় বাসিন্দা ফুল ইসলাম বলেন‚ স্থানীয় মানুষজন বিমানবন্দরের জমিগুলো লিজ নিয়ে চাষাবাদ করে আসছে, ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর এখন ও গোচারণ ভূমি পরিণত হয়েছে।

সংস্কৃত কর্মী মাসুদ রানা বলেন উপর বিমানবন্দরের চেয়েও আমাদের ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর রান‌ওয়ে অনেক বিশাল। আমরা চাই অবশ্যই সরকার ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর চালু করার উদ্যোগ গ্রহণ করবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

ট্যাগস :

৪৩ বছর পরিত্যক্ত অবস্থায় ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর

আপডেট সময় : ০৫:২৪:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুলাই ২০২৩

মোঃ হাবিব, ঠাকুরগাঁও -সদর উপজেলা প্রতিনিধি। 

ব্রিটিশ আমলের স্থাপিত ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর চালু ছিল স্বাধীনতার পরও। তবে লোকের কারণে ১৯৭১ সালের দিকে এখানে বিমান ওঠানামা বন্ধ হয়ে যায়।

যাত্রী কম হওয়ায় অজুহাত দেখিয়ে ১৯৮০ সালে বিমানবন্দর টিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয় এরপর অনেক উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলা হলেও ৪৩ বছরেও এই বিমানবন্দর আর চালু হয়নি। বিমান ঘাঁটি টি গোচারণ ভূমিতে পরিণত হয়েছে। স্থানীয়দের দাবি আগামী সমৃদ্ধ কে ঠাকুরগাঁওয়ের অন্যতম স্মরণী হতে পারে এই বিমানবন্দরটি।

জেলার শিল্প কারখানা নির্মাণ থেকে শুরু করে ব্যবসায়িক কর্মচারণ বাড়াতে রাখতে পারে বিমানবন্দরটি বড় ভূমিকা। বিমানবন্দরটি জেলার শহর থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে সড়কের মাদরগঞ্জ এলাকায় অবস্থিত। ১৯৪০ সালের বাসনা এখন জমিতে বিমানবন্দরটি প্রতিষ্ঠান করা। বন্দরটি প্রথম রান হয়ে তিন কিলো মিটার এলাকা জুড়ে।

জানা যায় তৎকালীন ব্রিটিশ সরকার বিমানবন্দরটি সামরিক কাজে ব্যবহার করার জন্য ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দরটি প্রতিষ্ঠান করেছিলেন। পাকিস্তান সরকার বিমানবন্দরটির জমি আর্মি স্টেট হিসেবে ঘোষণা করেন।

ঘোষণা দেওয়ার পর ১১১ একর জমি প্রায় সিভিল অভিয়েশন। ওই অংশে পরে ভবন ও রান হয়ে করা হয়। ১৯৬৫ সালে ভারত পাকিস্তান যুদ্ধের সময় ভারতীয় বিমান বাহিনী হামলায় বিমানবন্দরের ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এদিকে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরে ১৯৭৭ সালে লাইট পরিচালনার জন্য সংস্কার করা হয়। মাত্র দুই বছরে বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনা হলেও আগ্রহের অভাব এবং যাত্রী কম হয়ে যাওয়ায় ক্রম থেমে যায়।

১৯৮০ সালে ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর পরিত্যক্ত ঘোষণা। সেই তখন থেকে পরিত্যক্ত ও উন্মুক্ত অবস্থায় পড়ে আছে এই বিমানবন্দরটি স্থানীয়রা বিমানবন্দরের জমিতে লিস্ট নিয়ে বিভিন্ন ধরনের ফসল ফলিয়ে আসছে। এছাড়াও বিমানবন্দরের একটি ব্যবহার হচ্ছে কৃষকদের চাটার হিসেবে।

এদিকে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে পরিত্যাক্ত ঠাকুরগাঁও ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর অবকাঠামোর পরিদর্শন করেছি ছিলেন সরকারের সাবেক বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মিলন এবং ২০১৯ সালে এপ্রিল মাসের বিমানবন্দর পরিদর্শন করতে আসেন বর্তমান রেল পথ মন্ত্রী অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজন।

তারা দুজন‌ই ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দ র চালু করার জন্য ব্যবস্থা নেওয়ার কথা আশ্বাস দেন। সেই আশ্বস্ত দীর্ঘদিন অব্যাহত হলেও বিমানবন্দরটি চালু বিষয়টি কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।

স্থানীয় বাসিন্দা ফুল ইসলাম বলেন‚ স্থানীয় মানুষজন বিমানবন্দরের জমিগুলো লিজ নিয়ে চাষাবাদ করে আসছে, ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর এখন ও গোচারণ ভূমি পরিণত হয়েছে।

সংস্কৃত কর্মী মাসুদ রানা বলেন উপর বিমানবন্দরের চেয়েও আমাদের ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর রান‌ওয়ে অনেক বিশাল। আমরা চাই অবশ্যই সরকার ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর চালু করার উদ্যোগ গ্রহণ করবেন।